• শুক্রবার, ০৭ মে ২০২১, ০১:০২ পূর্বাহ্ন
Headline
গোয়ালন্দে তৃতীয় লিঙ্গের জনগোষ্ঠীর মাঝে পুলিশের ঈদ সামগ্রী বিতরণ ঝিনাইদহে দুই ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানে জরিমানা ঝিনাইদহে ৫’শ হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর উপহার বিতরণ কালীগঞ্জে বেঁদে পল্লীর ৫ শতাধিক পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ বাড়ি ফিরছে মানুষ দৌলতদিয়ায় ঘাটে উপচে পড়া ভীর উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি রাজবাড়ীতে গত ২৪ ঘন্টায় ১৬জন করোনা আক্রান্ত রাজবাড়ীতে ফল দোকান ও গ্যাসের দোকানে মোবাইল কোর্টের অভিযান প্রায় ২শ বছরের ঐতিহ্য বহন করছে রাজবাড়ীর বড় মসজিদ পাংশায় র‌্যাবের অভিযান : ৫৯০ বোতল ফেন্সিডিলসহ মাদক ব্যবসায়ী মজনু গ্রেপ্তার চুরি হওয়ার পর বালিয়াকান্দির স্লুইস গেট বাজার জামে মসজিদে কোরআন শরীফ প্রদান

ঝিনাইদহে জিকে সেচ খালে পানি নেই, বৃষ্টি না হওয়ায় ব্যাহত হচ্ছে পাট-আউশ আবাদ

Reporter Name / ১৬৪ Time View
Update : বুধবার, ২৮ এপ্রিল, ২০২১

বসির আহাম্মেদ, ঝিনাইদহ প্রতিনিধি:
ঝিনাইদহে পানি সরবরাহ করা হয়নি কুষ্টিয়ার গঙ্গা-কপোতাক্ষ সেচ প্রকল্পের খালে। বৃষ্টি না হওয়া আর পানির স্তর নিচে নেমে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছেন ঝিনাইদহের শৈলকুপা, হরিণাকুন্ডু ও সদর উপজেলার কৃষকেরা।
জানা যায়, গঙ্গা-কপোতাক্ষ (জিকে) সেচ প্রকল্পের আওতায় রয়েছে ঝিনাইদহের ৩ টি উপজেলা। এই সেচ প্রকল্পের আওতায় জেলার ৩ উপজেলার প্রায় ২৯ হাজার হেক্টর আবাদী জমি রয়েছে। চলতি মৌসুমে ঝিনাইদহের এই জিকে সেচ প্রকল্পের পানি সরবরাহ না করায় ব্যাহত হচ্ছে পাট ও আউশ ধানের আবাদ। গত মাসের শুরুর দিকে কিছুটা পানি সরবরার করা হলেও তা ছিল না পর্যাপ্ত। বোরো ধানের জন্য পানি প্রয়োজন হলেও প্রকল্প কর্তপক্ষ পানি সরবরাহ করতে পারেনি। পানি না থাকায় আবাদ করা যাচ্ছে না পাট ও আউশ ধানের আবাদ।
ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার উত্তর মির্জাপুর গ্রামের কৃষক বাবু শেখ বলেন, একুন পিয়াজ, রসুন মাট থেকে উটে গেচে। একুন পাট আর ধান লাগাতি হবি। কিন্তু ক্যানালে পানি দেচ্ছে না। পাট যদি একুন না বুনি তাহলি বরে বনবো। ক্যানালে পানি আরও আগে আসা দরকার ছিলো। সেচ দিয়ে পান আর ধান বুনতি গেলে তো মেলা খরচ।
একই গ্রামের কৃষক রুহুল শেখ বলেন, এতোদিন যদি খালে পানি দিয়ে দিতো তাহলি পান আগেই বুনতি পারতাম। ধানের চারা দিতি পারতাম। পানি নেই তো কি দিয়ে চাষ করবো। বৃস্টিও হচ্চে না যে বৃস্টির পানি দিয়ে চাষ করবো। খুব বিপদে আচি।
খন্দকবাড়ীয়া গ্রামের কৃষক কাশেম আলী বলেন, ক্যানালে পানি নেই। ওদিক বৃস্টিও হচ্ছে না। আবার বোরিং দিয়ে যে পানি তুলে চাষ করবো তাতেও পানি ওটছে না। খুব কষ্টে আচি। পানি লিয়ার নিচে নেমে গেছে। পানিও উটছে না। কিভাবে চাষ করবো। এখন ক্যানালে যদি পানি দিতো তাহলি এই সমস্যার সমাধান হতো।
ঝিনাইদহ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আজগর আলী বলেন, জিকে সেচ প্রকল্পের পানি কৃষকের চাষের জন্য খুবই উপকারি। এতে কৃষকের উৎপাদন খরচও কমবে। আর এখন যদি পানি সরবরাহ না করা হয় তবে পাট ও আউশ ধানের আবাদ পিছিয়ে যাবে। এজন্য দ্রুত সেচ প্রকল্পের সব এলাকায় পানি সরবরাহ করা উচিত।
এ ব্যাপারে ঝিনাইদহ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-প্রধান সম্প্রসারণ কর্মকর্তা আব্দুল মোত্তালেব বলেন, পদ্মা নদীতে পানি না থাকার কারণে বোরো ধানের আবাদে পানি সরবরাহ বিঘ্নিত হয়েছিল। এখন পানি সরবরাহ করা হচ্ছে। বোরো ধানের পানি এখন সরবরাহ করা হবে। আর আউশ আবাদের পানি সরবরাহ করা হবে এ মাসের শেষ বা আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহে। এছাড়াও কৃষকদের চাহিদা অনুযায়ী স্থানভেদে পানি সরবরাহ করা হচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ
খান মোহাম্মদ জহুরুল হক

সম্পাদকীয় কার্যালয়ঃ
রাজবাড়ী প্রেসক্লাব ভবন (নীচ তলা),
কক্ষ নং-৩, রাজবাড়ী-৭৭০০।

Contact us: editor@dailyrajbarikantha.com

error: Sorry buddy! You can\'t copy our content :) Content is protected !!