• বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ০৭:৫৫ পূর্বাহ্ন

তেলের দাম বৃদ্ধির ‘যৌক্তিকতা’ তুলে ধরতে জ্বালানি মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ

প্রতিবেদকঃ / ৩৯ পোস্ট সময়
সর্বশেষ আপডেট শুক্রবার, ১২ আগস্ট, ২০২২

স্টাফ রিপোর্টার : “জ্বালানি মন্ত্রণালয় বা বিপিসিতে বলা হয়েছে, তারা যাতে ইমিডিয়েটলি জিনিসগুলো ক্লারিফাই করে”, বলেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব। জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির যৌক্তিকতা তুলে ধরতে জ্বালানি মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দিয়েছে মন্ত্রিসভা। বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ নির্দেশনা আসে। পরে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম সাংবাদিকদের সামনে আলোচনার বিষয়বস্তু তুলে ধরেন। সাংবাদিকদের প্রশ্নে তিনি বলেন, জ্বালানি মন্ত্রণালয় ও বিপিসি চেয়ারম্যান ইতোমধ্যে সংবাদমাধ্যমে বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছেন। বিষয়গুলো মন্ত্রিসভাকে অবহিত করা হয়েছে। জ্বালানি মন্ত্রণালয়কে বলা হয়েছে, তেলের দাম বৃদ্ধির যৌক্তিকতা নিয়ে তারা যেন ‘আবারও ব্রিফ’ করে। গত ৫ অগাস্ট প্রতি লিটার ডিজেল ও কেরোসিনের দাম ৪২.৫% বাড়িয়ে ১১৪ টাকা করা হয়। আর পেট্রোলের দাম ৫১.১৬% বাড়িয়ে ১৩০ টাকা এবং অকটেনের দাম ৫১.৬৮% বাড়িয়ে ১৩৫ টাকা করা হয়।
ইউক্রেইন যুদ্ধের ধাক্কায় বিশ্ব বাজারের অস্থিরতার কথা তুলে ধরে সেদিন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন, “অবস্থার প্রেক্ষিতে অনেকটা নিরুপায় হয়েই কিছুটা অ্যাডজাস্টমেন্টে যেতে হচ্ছে।”
তবে সরকারের ওই সিদ্ধান্ত নিয়ে এখন নানামুখী আলোচনা হচ্ছে। গত ছয় বছরে বিপিসি যে প্রায় ৪৬ হাজার কোটি টাকা লাভ করেছে, সেই টাকার হিসাবেও ‘কোনো স্বচ্ছতা নেই’ বলে অভিযোগ এনেছে সিপিডি। এই আলোচনার মধ্যে বুধবার ঢাকার কারওয়ান বাজার বিপিসির ঢাকা অফিসে সংবাদ সম্মেলনে এসে কোম্পানির চেয়ারম্যান এ বি এম আজাদ বলেন, এখন ডিজেল বিক্রি করে তাদের প্রতি লিটারে ৬ টাকা লোকসান গুণতে হলেও অকটেনে প্রতি লিটারে লাভ হচ্ছে ২৫ টাকা। তবে সরকারি দরে ডলার কিনলে এবং জুলাই মাসের মতো বিক্রি হলে শুধু ডিজেল-অকটেন থেকে প্রতি মাসে ২০৫ কোটি টাকা মুনাফা হতে পারে।
বৃহস্পতিবার মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর মন্ত্রিপরিষদ সচিবও এ বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের মুখোমুখি হন। বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের দাম এখন নিম্নমুখী হওয়ায় তা সমন্বয় করে দেশেও কমানোর বিষয়ে কোনো নির্দেশনা এসেছে কি না- তা জানতে চান সাংবাদিকরা। উত্তরে আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, “এগুলো নিয়ে তো উনারা (জ্বালানি মন্ত্রণালয় ও বিপিসি) বিস্তারিত ব্যাখ্যা দিয়েছেন, এর মধ্যে আবার ব্যাখ্যা দেবেন। “আজকে বলে দেওয়া হয়েছে, কারণ এটা একটা টেকনিক্যাল বিষয়। স্বল্প পরিসরে আমি ব্যাখ্যা দিলে অনেক প্রশ্ন আসবে, উত্তরও হয়ত দেওয়া যাবে না টেকনিক্যাল বিষয়ে। সেজন্য অলরেডি জ্বালানি মন্ত্রণালয়কে বলে দেওয়া হয়েছে, তারা যে ব্রিফিং করেছে, সেটা আবার রি-ব্রিফিং করে দেবে।” যেসব যুক্তিতে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো হয়েছে, সেসব যুক্তি খন্ডন করে গবেষণা সংস্থা সিপিডি বলেছে দাম বাড়ানোর ‘পদক্ষেপ’ এড়ানো যেত। এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, “এই জিনিসগুলোই আলোচনা হয়েছে। জ্বালানি মন্ত্রণালয় বা বিপিসিকে বলা হয়েছে, তারা যাতে ইমিডিয়েটলি জিনিসগুলো ক্লারিফাই করে।”


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরিতে আরো সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ
খান মোহাম্মদ জহুরুল হক

সম্পাদকীয় কার্যালয়ঃ
রাজবাড়ী প্রেসক্লাব ভবন (নীচ তলা),
কক্ষ নং-৩, রাজবাড়ী-৭৭০০।

Contact us: editor@dailyrajbarikantha.com

প্রকাশনাঃ
সম্পাদক কর্তৃক বি এস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়নবী সার্কুলার রোড, ঢাকা-১২০৩ থেকে মুদ্রিত এবং দক্ষিণ ভবাণীপুর, রাজবাড়ী থেকে প্রকাশিত।

মোবাইল- ০১৭১১১৫৪৩৯৬,
বার্তা বিভাগ- ০১৭৫২০৪০৭২০,
বিজ্ঞাপন বিভাগ- ০১৯৭১১৫৪৩৯৬

error: Sorry buddy! You can\'t copy our content :) Content is protected !!