• সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৯:৫৭ পূর্বাহ্ন

গোয়ালন্দে জিপিএ ৫ পেয়েও কলেজে ভর্তির অনিশ্চয়তা

প্রতিবেদকঃ / ৫০ পোস্ট সময়
সর্বশেষ আপডেট সোমবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০২২

গোয়ালন্দ প্রতিনিধি : এবছরে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া আক্কাছ আলী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে জিপিএ ৫ পেয়েও কলেজে ভর্তি নিয়ে দেখা দিয়েছে অনিশ্চয়তা।
উপজেলার দৌলতদিয়া ৫ নং ওয়ার্ড আইনউদ্দিন বেপারী পাড়ার রশিদ মন্ডলের তৃতীয় কন্যা সুমাইয়া আক্তার। তার পরিবারে অভাব অনটন থাকার পরও ছোট বেলা থেকেই লেখাপড়ার উপর খুবই মনোযোগী হওয়ায় তার বাবা স্কুলে ভর্তি করে দেন। প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে ৫ম শ্রেণীতে উত্তীর্ণ হয়ে আক্কাছ আলী বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শেণীতে ভর্তি হয়। সে সময় তার পরিবার তার লেখাপড়ার খরচ বহন করতে না পাড়ায় সুমাইয়া পড়াশুনা বন্ধ করে দিতে চায় তার পরিবার। বিষয়টি প্রধান শিক্ষক জানার পর সুমাইয়ার লেখাপড়ার জন্য সম্পূর্ণ খরচ বহন করেন প্রধান শিক্ষক।
জানাগেছে, এবছরে আক্কাছ আলী বিদ্যালয় থেকে মোট ৪৮ জন শিক্ষার্থী এসএসসি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে তাদের মধ্যে থেকে একমাত্র সুমাইয়া আক্তার জিপিএ ৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে। জিপিএ ৫ পেয়েও অর্থের অভাবে কলেজে ভর্তি নিয়ে অনিশ্চয়তা মধ্যে পড়েছে অদম্য মেধাবী শিক্ষার্থী সুমাইয়ার পরিবার। তাদের পরিবারে সদস্য সংখ্যা ৬ জন। তার বাবা একা ছোট্র একটি মুদি দোকান করে কোন রকম সংসার চালাচ্ছেন। এমস্থায় তার বাবার পক্ষে মেয়েকে কলেজে ভর্তি করা সম্ভব হচ্ছে না।
শিক্ষার্থী সুমাইয়া আক্তার বলেন, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আমাকে অনেক সহযোগিতায় করেছেন। বিনামূল্য আমাকে পড়াশুনার সুযোগ করে দিয়েছিলো। সে জন্য আমি আজ জিপিএ ৫ পেয়েছি। আমার বাবা ছোট্র একটি মুদি দোকান করেন। তাতে সংসার ভাল ভাবে চলে না। তারপর পরিবারে ৬ জন সদস্য। আমার বাবার পক্ষে আমাকে কলেজে ভর্তি করা সম্ভব না। আমি যদি বাইরের কোন সহযোগিতায় পাই তাহলে আমি ভালো কোন কলেজে ভর্তি হতে পারবো। আমি ভবিষ্যতে ফরেন্স অফিসার হতে চাই।
সুমাইয়ার বাবা রশিদ মন্ডল বলেন, আমি একজন নদী ভাঙন লোক। আমি কোন ছোট একটি মুদি দোকান করে সংসার চালাচ্ছি। তাতে আমার অনেক কষ্ট হয়। তার পরে আবার মেয়ের পিছনে টাকা খরচ করবো কি ভাবে। আমার মেয়ে পরীক্ষায় ভালো করেছে শুনছি। ওর কলেজে ভর্তির জন্য যদি সমাজের কোন বৃত্তশালী লোক এগিয়ে আসে তাহলে কলেজে ভর্তি করা সম্ভব। তা না হলে আমার পক্ষে সম্ভব না।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. জাকির হোসেন বলেন, বিদ্যালয় থেকে ২০২২ সালের এসএসসি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করেছে সুমাইয়া আক্তার। জিপিএ ৫ পেয়ে পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে। সুমাইয়া একজন অদম্য মেধাবী শিক্ষার্থী। আমার বিদ্যালয়ে ষষ্ঠ শ্রেণীতে ভর্তি হওয়ার পর থেকেই অদ্যবদী তার সার্বিক সহযোগিতা করে আসছি এবং আগামী অর্থাৎ একাদশে ভর্তির যাবতীয় কার্যক্রম আমি দেখভাল করবো। পাশাপাশি সমাজের বৃত্তশালী ব্যক্তিরা অদম্য মেধাবী শিক্ষার্থীর সুমাইয়ার পাশে থেকে সহযোগিতা করার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরিতে আরো সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ
খান মোহাম্মদ জহুরুল হক

সম্পাদকীয় কার্যালয়ঃ
রাজবাড়ী প্রেসক্লাব ভবন (নীচ তলা),
কক্ষ নং-৩, রাজবাড়ী-৭৭০০।

Contact us: editor@dailyrajbarikantha.com

প্রকাশনাঃ
সম্পাদক কর্তৃক বি এস প্রিন্টিং প্রেস, ৫২/২ টয়নবী সার্কুলার রোড, ঢাকা-১২০৩ থেকে মুদ্রিত এবং দক্ষিণ ভবাণীপুর, রাজবাড়ী থেকে প্রকাশিত।

মোবাইল- ০১৭১১১৫৪৩৯৬,
বার্তা বিভাগ- ০১৭৫২০৪০৭২০,
বিজ্ঞাপন বিভাগ- ০১৯৭১১৫৪৩৯৬

error: Sorry buddy! You can\'t copy our content :) Content is protected !!