• বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০১:২৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
রাজবাড়ীতে আদালতের নির্দেশে জমির দখল বুঝে পেলেন নাসির উদ্দিন কৃষক পরিবারের সন্তানদের অংশগ্রহণে দৌলতদিয়ায় নাইট সর্টপিস ক্রিকেট টুর্নামেন্ট উদ্বোধন বালিয়াকান্দি বেসরকারি ক্লিনিক হাসপাতাল ল্যাব ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অভিযান পাংশায় বেসরকারি ক্লিনিক হাসপাতাল ল্যাবও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অভিযান গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেটের ফাইনালে দূরন্ত ক্রিকেট একাদশ চ্যাম্পিয়ন কালুখালীতে জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস পালিত পাংশায় জাতীয় পরিসংখ্যান দিবস পালিত বালিয়াকান্দিতে জাতীয় পরিসংখ্যান দিবসে র‌্যালী ও আলোচনা সভা পাংশায় জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস পালিত গোয়ালন্দে জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবসে র‌্যালী ও আলোচনা সভা

রাজবাড়ীতে মাল্টা চাষে সফল চাষী আলাউদ্দিন

প্রতিবেদকঃ / ৫৫ পোস্ট সময়
সর্বশেষ আপডেট রবিবার, ১১ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪


মেহেদী হাসান : “ইউটিউব দেখে আগ্রহী হয়ে বানিজ্যিক ভাবে পাকিস্তানী মাল্টা চাষ করে সফল হয়েছেন রাজবাড়ী সদর উপজেলার চাষী মোঃ আলাউদ্দিন শেখ। এখন তার বাগানে ঝুলছে থোকায় থোকায় রসালো এ মাল্টা। তার বাগানের উৎপাদিত মাল্টা এখন রাজবাড়ীর বাজারে বিক্রি হচ্ছে। এ বছর বিক্রির আশা কয়েক লক্ষ টাকা। পাকিস্তানী জাতের এ মাল্টা একটি সম্ভাবনাময় ফসল। এ থেকে তৈরী হবে নতুন নতুন উদ্যোক্তা, আর ঘুচবে বেকারত্ব। আর কৃষি বিভাগ বলছেন মাল্টা চাষে কৃষককে দেওয়া হচ্ছে সব ধরনের সহযোগিতা।
রাজবাড়ী জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর বলছে, মাল্টার বাগান একবার তৈরি করলে ১০-১২ বছর ফল পাওয়া যায়। রাজবাড়ীর আবহাওয়া ও মাটি মাল্টা চাষের উপযোগি হওয়ায় এটি আগামীতে একটি সম্ভাবনার ফসল হবে বলেও আশা করছেন। এ বছর রাজবাড়ী জেলায় ৮ হেক্টর জমিতে মাল্টার চাষ হয়েছে।
রাজবাড়ী সদর উপজেলার চন্দনী ইউনিয়নের ঘোরপালান গ্রামের মাল্টা চাষী মোঃ আলাউদ্দিন শেখ। তিনি ইউটিউব দেখে আগ্রহী হন পাকিস্তানী জাতের মাল্টা চাষে। আড়াই বছর আগে রংপুরের একজন বন্ধুর কাছ থেকে পাকিস্তানী মাল্টা গাছের চারা সংগ্রহ করেন। সেই চারা দিয়ে একটি মাল্টা বাগান গড়ে তোলেন। এক হেক্টর জমিতে রয়েছে তার অন্তত ২ হাজার মাল্টা গাছ। যেখানে প্রতিটি গাছেই থোকায় থোকায় দুলছে সবুজ ও হলুদ রংয়ের মাল্টা। এরই মধ্যে ১ লক্ষ টাকার মাল্টা বিক্রি হলেও এখন বাগানে রয়েছে আরো অন্তত ২০০ মন মাল্টা যা বিক্রি হবে সাড়ে ৫ থেকে ৬ লক্ষ টাকা।
মাল্টা চাষী মোঃ আলাউদ্দিন শেখ বলেন, খেতে সুস্বাদু ও রসালো এ ফল চাষে সু্িবধা ভোগ করা যায় বছরের পর বছর। তাছাড়া ফলনও অনেক বেশি। প্রতিটি গাছেই ২০-২৫ কেজি মাল্টা ধরেছে। বর্তমানে বাগান থেকে ৭০-৭৫ টাকা কেজিতে মাল্টা বিক্রি হচ্ছে।
মাল্টা বাগানের পরিচর্যাকারী জুয়েল রানা বলেন, প্রতি দিন ভোর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বাগানে কাজ করেন ৪৫-৫০ জন শ্রমিক। এ এলাকায় মাল্টা বাগান গড়ে ওঠায় তারাও কাজ করার সুযোগ পাচ্ছেন। এ বছর এত পরিমাণ মাল্টা ধরেছে যার ওজনে ডালপালা ভেঙ্গে পড়ছে। প্রতিটি গাছে ২০-২৫ কেজি মাল্টা ধরেছে। প্রতিদিনই বাগান থেকে বিক্রি হচ্ছে মাল্টা।
আলাউদ্দিন শেখের মাল্টা বাগান দেখতে প্রতিদিন দুর-দুরান্ত থেকে আসছেন দর্শনার্থীরা। বলছেন এ বাগানের মাল্টা সুস্বাদু হওয়ায় বিক্রিতেও নেই ঝাঁমেলা। এ মাল্টা বাগান বেকারত্ব দুরীকরণে হতে পারে উদাহরণ। যে কারণে পরামর্শ ও চারা সংগ্রহ করতে আসছেন দর্শনার্থীরা।
রাজবাড়ী রেল গেইটে মাল্টা বিক্রেতা ফজর আলী বলেন, আলাউদ্দিন শেখের বাগান থেকে মাল্টা ক্রয় করে বিক্রি করছেন। সহজেই বাগান থেকে মাল্টা ক্রয় করে এনে বিক্রি করতে পেরে লাভও বেশি হচ্ছে। আর সুস্বাধু হওয়ায় ক্রেতাদের চাহিদাও রয়েছে ব্যাপক। তার মতো অনেকেই মাল্টা ক্রয় করে বিক্রি করছেন।
রাজবাড়ী সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ জনি খান বলেন, পাকিস্তানী মাল্টা একটি জনপ্রিয় ফল হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে। মাল্টা চাষে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তারা সব সময় পরামর্শ প্রদান করে যাচ্ছেন। এতে প্রতিনিয়ত নতুন নতুন উদ্যোক্তা তৈরি হচ্ছে। এছাড়াও মাল্টায় রোগ বালাই কম থাকায় এতে লাভ হয় বেশি। ক্ষতির সম্ভাবনা একে বারেই কম। মাল্টার বাগান একবার তৈরি করলে ১০-১২ বছর ফল পাওয়া যায়। রাজবাড়ীর আবহাওয়া ও মাটি মাল্টা চাষের উপযোগি হওয়ায় এটি আগামীতে একটি সম্ভাবনার ফসল হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরিতে আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ